Top kidney transplant hospital in India
Kidney transplant in India

কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট

ভারতবর্ষের ম্যাক্স হাসপাতাল, কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের ক্ষেত্রে একটি ব্যতিক্রমী চিকিৎসা সরবরাহ করে। এখানে কার্ডেনেরিক কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট লাইভ ডোনার ট্রান্সপ্ল্যান্ট এবং সেই সাথে একটি উন্নত এবিও ইনকম্পেটিবল কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট পদ্ধতি (ABO Incompatible Kidney Transplant procedure) (রক্তের ধরন যদি নাও মেলে তাও ট্রান্সপ্ল্যান্ট সম্পন্ন করা) একসাথে সরবরাহ করা হয়। এই হাসপাতাল ইউরোলজি, ক্রনিক কিডনি ডিজিজ, ডায়ালাইসিস, কিডনি প্রতিস্থাপন এবং রেনাল ডিজিজের ক্ষেত্রে উন্নতমানের পরিষেবা প্রদান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। অত্যাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং চিকিৎসা পদ্ধতির জন্য আমাদের এই হাসপাতাল বিখ্যাত কারণ আমাদের এই চিকিৎসা কেন্দ্র এন্ডোস্কোপিক এবং ল্যাপারোস্কোপিক সার্জারির জন্য সম্পূর্ণভাবে সজ্জিত।

রোগের লক্ষণ:

মূত্রাশয় বিফলতা এবং শেষ পর্যায়ের রেনাল ডিজিজের কয়েকটি লক্ষণ নিচে উল্লেখ করা হয়েছে যখন কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের প্রয়োজন হয়:
  1. বমি বমি ভাব বা বমি
  2. ক্ষুধামান্দ্য
  3. ক্লান্তি ও দুর্বলতা
  4. ঘুমের সমস্যা
  5. প্রস্রাবে পরিবর্তন
  6. পেশী টান এবং পেশীতে খিঁচুনি
  7. গোড়ালি এবং পায়ে ফোলাভাব
  8. অনবরত চুলকানি
  9. বুকে ব্যথা, যখন হৃৎপিণ্ডের আস্তরণে তরল তৈরি হয়
  10. শ্বাসকষ্ট এবং উচ্চ রক্তচাপ

রোগ নির্ণয় পদ্ধতি:

কিডনি ব্যর্থতার অনেকগুলি কারণ রয়েছে এবং চিকিৎসকরা কিডনি ক্ষতির কারণ নির্ণয় করার জন্য বিশেষ ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতি এবং পরীক্ষার সাহায্য করে থাকেন। নিম্নলিখিত ডায়াগনস্টিক পরীক্ষাগুলি হল কিডনি রোগের মাত্রা শনাক্ত করতে সম্পাদন করা হয়।
  1. রেনাল আল্ট্রাসাউন্ড:এই ইমেজিং পরীক্ষাটি রিয়েল-টাইম বা বর্তমান সময়ে ইমেজিং পরীক্ষার মাধ্যমে কিডনিকে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করার জন্য হাই-ফ্রিকোয়েন্সি বা উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন শব্দ তরঙ্গ ব্যবহার করে।
  2. সিটি স্ক্যান: কম্পিউটেড টমোগ্রাফি স্ক্যান সংক্ষেপে সিটি স্ক্যান নামে পরিচিত। এটি এক প্রকারের উন্নত ধরনের এক্স-রে। টমোগ্রাফিতে কিডনির একাধিক চিত্র এবং ছবি উপস্থাপন করার জন্য কম্পিউটারের সাথে বিশেষ এক্স-রে সরঞ্জাম একত্রিত করা হয়। পরে ছবিগুলি কম্পিউটারে প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে একত্রিত করা হয়। এই পদ্ধতির সাহায্যে চিকিৎসকরা কিডনি ফেইলিওর বা কিডনি বিকলতার সঠিক কারণগুলি অনুমান করতে পারেন।
  3. রক্ত পরীক্ষা:রেনাল ফাংশন টেস্টগুলি রক্তের পরীক্ষাগুলির একটি ক্রম যা মূত্রাশয়-সম্বন্ধীয় রেচনতন্ত্রের অস্বাভাবিক ক্রিয়াগুলিকে নির্ধারণে সহায়তা করে।
  4. রেনাল সিন্টি‌গ্রাফি:এটি একটি রেনাল নিউক্লিয়ার টেস্ট, যেখানে গামা ক্যামেরা এবং রেডিওট্রেসারের সাহায্যে কিডনির কার্যকারিতাকে মূল্যায়ন করা হয়। এই পরীক্ষায় কিডনির কার্যকারিতা এবং প্রস্রাব কতটা নিঃসরণ হচ্ছে সে সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করে।
  5. টিস্যু বায়োপসি: ইমেজিং পরীক্ষার সাহায্যে কিডনির মধ্যে থাকা টিস্যুর একটি ছোট্ট অংশ কেটে বাইরে আনা হয় এবং যেকোনো অস্বাভাবিকতার জন্য মাইক্রোস্কোপের অধীনে এই ছোট্ট টিস্যুটিকে পরীক্ষা করা হয়।

সার্জারির আগে যে সতর্কতাগুলি অবশ্যই পালন করা উচিত -

অস্ত্রোপচারের আগে, রোগীদের একটি সম্পূর্ণ শারীরিক সক্ষমতার পরীক্ষা এবং শল্য চিকিৎসার মূল্যায়ন করা প্রয়োজন। সার্জারির আগে রোগীদের CBC (কমপ্লিট ব্লাড কাউন্ট), রেনাল ফাংশন পরীক্ষা, ইউএসজি কিডনি ইত্যাদিসহ একাধিক শারীরিক পরীক্ষা করা হয়। রোগীরা যাতে গ্রাফ্ট প্রক্রিয়া এড়াতে না পারে তার জন্য তাদের ইমিউনোসাপ্রেসিভ ওষুধও প্রয়োগ করা হয়। পেরিঅপারেটিভ অ্যান্টিবায়োটিক থেরাপি অপারেশনের পরে সংক্রমণ রোধ করার জন্য প্রয়োগ করা হয়।
  1. রেনাল ফাংশন পরীক্ষা
  2. রক্তাল্পতা নিবারণের জন্য রক্তের সম্পূর্ণ গণনা
  3. ধমনীর মধ্যে রক্তের ​​গ্যাস পরিমাপ (এটি একটি রক্ত পরীক্ষা যেখানে ধমনী থেকে অ্যাসিডটি বা পিএইচ এবং অক্সিজেন এবং কার্বন-ডাই-অক্সাইডের স্তর পরিমাপ করা হয়)
  4. অন্যান্য শারীরিক পরীক্ষা
  5. বুকের রেডিওগ্রাফ ইত্যাদি

সার্জারি করার পরে যে সতর্কতাগুলি পালন করা উচিত -

অস্ত্রোপচারের পরে, রোগীকে আরোগ্য লাভের ঘরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং অতীব গুরুত্বপূর্ণ স্থিতির পরিবর্তনের জন্য অবিচ্ছিন্নভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয়। অপারেশনের পরে রোগীর ব্যথা থেকে তাড়াতাড়ি মুক্তি পাওয়ার জন্য ব্যথার ওষুধ পরিচালনা করা হয়। ডিপ ভেইন থ্রম্বোসিস এড়ানোর জন্য প্রথমদিকে আন্দোলনগুলি ফিরিয়ে আনা হয় এবং বুকের টান রোধ করার জন্য গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের অনুশীলন করানো হয়। রোগীরা যাতে গ্রাফ্ট প্রক্রিয়া এড়াতে না পারে তার জন্য তাদের বিশেষ পর্যবেক্ষণ করা হয়। গ্রাফ্ট রিজেকশন হল রেনাল ট্রান্সপ্ল্যান্টেশনের সবচেয়ে ফ্রিকোয়েন্ট‌ এবং উল্লেখযোগ্য সমস্যা। সুতরাং রোগীদের যাতে গ্রাফ্ট রিজেকশন বাদ না যায় সেই হেতু অ্যান্টি-রিজেকশন ওষুধ গ্রহণ করা দরকার।

কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারির স্বতন্ত্র পদ্ধতি -

আমরা প্রথমেই বলেছি যে ভারতবর্ষের ম্যাক্স হাসপাতাল, কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের সমস্ত ধরনের সার্জারি সরবরাহের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে থাকে। এখানে যেহেতু একটি উন্নত এবিও ইনকম্পেটিবল কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট পদ্ধতি (ABO Incompatible Kidney Transplant procedure) (রক্তের ধরন যদি নাও মেলে তাও ট্রান্সপ্ল্যান্ট সম্পন্ন করা) রয়েছে তাই এই হাসপাতাল কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের জগতে উন্নতমানের পরিষেবা প্রদান করে। এখানকার চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা রোবোটিক কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি করতে পটু এবং দক্ষ। এছাড়াও, মূত্রনালীর ল্যাপারোস্কোপিক সার্জারির জন্য তাদের বিশেষ জ্ঞান রয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য সবচেয়ে সেরা হাসপাতাল নির্বাচন করার অর্থ হল রোগীর শারীরিক সক্ষমতা তাড়াতাড়ি ফিরিয়ে আনা এবং তাদেরকে স্বাস্থ্যকর জীবন উপহার দেওয়া। আমাদের এই চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে বিশিষ্ট নেফ্রোলজিস্ট, ইউরোলজিস্ট এবং কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য অনেক ধরনের উন্নতমানের সার্জারি এবং চিকিৎসা পদ্ধতি উপলব্ধ।

কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্টের জন্য দাতা -

কিডনি যিনি দান করবেন তাকে অবশ্যই শারীরিকভাবে যথেষ্ট সক্ষম হতে হবে এবং ইতিবাচক মানসিক অবস্থার মধ্যে থাকতে হবে। এর পাশাপাশি তাদের ভাল স্বাস্থ্য প্রয়োজন। স্বাস্থ্যকর রুটিন এবং ডায়েটের মতো শল্য চিকিত্সার আগে কিছু সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন যা তাদের শারীরিক সক্ষমতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে। আমরা নিশ্চিত করছি যে চিকিৎসা শুরু করার দিন থেকে দাতাকে হাসপাতাল থেকে ডিসচার্জ করার দিন পর্যন্ত, আমরা কিডনি দাতার স্বাস্থ্যের উপর নিবিড় নজর রাখি।

আমাদের হাসপাতালের সম্পর্কে আমাদের রোগীরা যা বলেন তা শুনুন

সচরাচর জিজ্ঞাসা করা হয় এমন প্রশ্নাবলী

আপনাদের হাসপাতাল কি উন্নতমানের পরিষেবার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে প্রত্যয়িত?

আমরা ভারতবর্ষের মধ্যে বিস্তীর্ণ এবং বিরামহীনভাবে বিশ্বমানের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে থাকি। গোটা ভারতবর্ষে আমাদের ১৪টি অত্যাধুনিক হাসপাতাল সহ একটি সুবিশাল নেটওয়ার্ক রয়েছে, যার মধ্যে আমরা ২৯ ধরনের চিকিৎসা বিভাগে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্যে সর্বোৎকৃষ্ট চিকিৎসা পরিষেবা প্রদান করে থাকি। আমাদের হাসপাতালে নিজের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এবং আন্তর্জাতিক স্তরের দক্ষতা সম্পন্ন ২৩০০ এরও বেশি শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসক রয়েছেন, যারা আন্তর্জাতিক ব্যয়ের একটি খুব কম অংশে শ্রেষ্ঠ এবং সর্বোচ্চ মানের চিকিৎসা প্রদান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ম্যাক্স হসপিটাল তার সুপার-স্পেশালিটি (অত্যাধুনিক) সুবিধার জন্য এবং রোগীদের উচ্চমানের পরিষেবা দেওয়ার জন্য আইএসও (ISO) অনুমোদন এবং এনএবিএইচ (NABH) স্বীকৃতি লাভ করেছে।

আমি নিশ্চিত হতে পারছি না আমি ভারতীয় খাবার খেতে পারব কিনা? এবং আমার একটি নির্দিষ্ট ধরনের পছন্দের খাদ্যতালিকা রয়েছে। আমি কিভাবে মানিয়ে চলতে পারব?

ম্যাক্স হাসপাতাল আপনার খাবারের পছন্দগুলি যত্ন নেবে। আমাদের একটি দল রয়েছে যা আপনার প্রয়োজনীয়তা দেখাবে।

অন্য দেশে যাওয়ার আগে আমাকে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের সাথে কথা বলতে হবে। এটা কি সম্ভব?

হ্যাঁ অবশ্যই। আপনাকে কেবল আপনার প্রয়োজনীয় তথ্যের ফর্মটি প্রথমে পূরণ করতে হবে, বাকি সমস্ত কিছু ম্যাক্স হাসপাতালের কর্মীবৃন্দ যত্ন নেবেন।

WhatsApp